Image Not Found!
ঢাকা   সোমবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | ২৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সর্বশেষ সংবাদ

  চলে গেলেন বীরপ্রতীক (বার) কমান্ডার জহুরুল হক মুন্সী (95)        গজনীতে বর্নাঢ‍্য আয়োজনে দৈনিক সত্যের সন্ধানে প্রতিদিন পত্রিকার ১০ম বর্ষ পদার্পণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত (94)        নালিতাবাড়ীতে এসএসসি ৯৭ ব্যাচের ছাত্র-শিক্ষক মিলন মেলা ও সম্মাননা প্রদান (95)        পাখি সংরক্ষণে অবদান রাখায় শেরপুর বার্ড কনজারভেশন সোসাইটি পেলেন বিশেষ পুরস্কার (91)         শেরপুরে পরিবহন মালিক, চালক,শ্রমিক, ও হেলপারদের নিয়ে ট্রাফিক আইন সচেতনতামূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত (95)        কলমাকান্দায় ভুট্টা চাষের স্বপ্ন দেখছেন কৃষকরা (94)        অবশেষে জামিনে মুক্ত কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক নেতা পাইলট (94)        শেরপুরে জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস উপলক্ষে বই পাঠ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত (95)        কলমাকান্দায় নৌকা ডুবে এক ব্যক্তি নিখোঁজ (95)        শ্রীবরদীতে ফাঁসিতে ঝুঁলে শিক্ষার্থীর আত্বহত‍্যা (95)      

তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত ||ভয়াবহ বন্যার আশংকা

ভারতে বন্যার ভয়াবহ প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশের তিস্তা নদীতেও। এতে এরইমধ্যে ভেঙে গেছে তিস্তা ব্যারাজের লালমনিরহাট অংশের একটি বাঁধ। হুমকির মুখে অন্য বাঁধগুলোও। এদিকে ব্যারাজ রক্ষার্থে রেড এলার্ট জারি করে তিস্তার তীরবর্তী বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে মাইকিং করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। বুধবার দুপুর থেকে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার ৭০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এই প্রবাহ আরও কি পরিমাণ বাড়তে পারে তার ধারণা নেই পানি উন্নয়ন বোর্ডের। এদিকে উজানের ঢলে ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে রেখেও পানি সামাল দেয়া যাচ্ছে না। ফলে পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে। হাতীবান্ধা উপজেলার গড্ডিমারী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবু বক্কর সিদ্দিক শ্যামল বলেন, তিস্তা নদীর পানি হঠাৎ করে বেড়ে যাওয়ায় বড়খাতা টু হাতীবান্ধা বাইপাস সড়কটির বিভিন্ন স্থানে ভেঙে গেছে। এতে তার ইউনিয়নের কয়েক হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। পানিতে ডুবে গেছে লালমনিরহাট জেলার ৫ উপজেলার তিস্তা তীরবর্তী হাজার হাজার একর ফসলি জমি। জেলা পরিষদ সদস্য শকিল হোসেন বলেন, বালু পড়ে তিস্তা ব্যারাজের গেটগুলো বন্ধ হয়ে গেলেও ব্যারাজ কর্তৃপক্ষ গেট থেকে বালু সরিয়ে নেয়নি। ফলে তিস্তা ফ্লাড বাইপাসে পানির চাপ বেড়ে গিয়ে তা ভেঙে যায়। এতে তিস্তার পানিতে ডুবছে লোকালয়। লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, পানির চাপে তিস্তা ফ্লাড বাইপাস ভেঙে গেছে। এতে তিস্তার তীরবর্তী অঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও ইউএনওদের মাধ্যমে বন্যা পরিস্থিতির খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। স্থানীয়রা বলছেন, প্রতিবার বন্যার আগে পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে বন্যার আগাম পূর্বাভাস জানানো হলেও এবার তা জানানো হয়নি। ফলে বন্যার পানিতে ভয়াবহ ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন তারা। পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া’র নির্বাহী প্রকৌশলী আসফুদ্দৌলা বলেন, মঙ্গলবার রাত থেকে তিস্তার পানি বেড়ে ডালিয়া পয়েন্টে বিপৎসীমার ১০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়েছে। বুধবার সকাল ৯টায় ওই পয়েন্টে ৬০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। দুপুর ১২টায় বিপৎসীমার ৭০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যার ফলে ইতোমধ্যে ব্যারজের ফ্লাড বাইপাসটি পানির চাপে ভেঙে গেছে। তিস্তার পানি ক্রমেই বাড়ছে। আরও কি পরিমাণ পানি আসতে পারে তা ধারণা করা যাচ্ছে না। পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলে, ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে রেখেও পানি সামাল দেয়া যাচ্ছে না। আমরা তিস্তা অববাহিকায় লাল সংকেত দিয়ে মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বলেছি।