Image Not Found!
ঢাকা   রবিবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | ২৩ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সর্বশেষ সংবাদ

  নালিতাবাড়ীতে এসএসসি ৯৭ ব্যাচের ছাত্র-শিক্ষক মিলন মেলা ও সম্মাননা প্রদান (95)        পাখি সংরক্ষণে অবদান রাখায় শেরপুর বার্ড কনজারভেশন সোসাইটি পেলেন বিশেষ পুরস্কার (91)         শেরপুরে পরিবহন মালিক, চালক,শ্রমিক, ও হেলপারদের নিয়ে ট্রাফিক আইন সচেতনতামূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত (95)        কলমাকান্দায় ভুট্টা চাষের স্বপ্ন দেখছেন কৃষকরা (94)        অবশেষে জামিনে মুক্ত কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক নেতা পাইলট (94)        শেরপুরে জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস উপলক্ষে বই পাঠ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত (95)        কলমাকান্দায় নৌকা ডুবে এক ব্যক্তি নিখোঁজ (95)        শ্রীবরদীতে ফাঁসিতে ঝুঁলে শিক্ষার্থীর আত্বহত‍্যা (95)        ঘুমানোর সময় আলো জ্বালিয়ে রাখলে আমাদের শরীরের অনেক ক্ষতি হতে পারে (90)        সেরা ১০০ জন ফুটবলারের তালিকায় মেসি নাম্বার ওয়ান (84)      

ইউক্রনের বিরুদ্ধে ৯ মে সর্বাত্মক যুদ্ধের ঘোষণা দেবেন পুতিন

 আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ  প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের নির্দেশে গেল ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের নামে আগ্রাসন শুরু করে রুশ সেনাবাহিনী। মূলত সেই থেকে দেশটিতে ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে থাকে মস্কো। এরই মধ্যে পশ্চিমা কর্মকর্তারা ধারণা করতে শুরু করেছেন, আগামী ৯ মে রাশিয়ার বিজয় দিবসেই ইউক্রেনে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘যুদ্ধ’ ঘোষণা করতে পারেন পুতিন। মার্কিন মিডিয়া সিএনএনের প্রতিবেদন থেকে এসব জানা গেছে।বিষয়টি নিয়ে গত সপ্তাহে ব্রিটেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেন ওয়ালেস এলবিসি রেডিওকে একটি সাক্ষাৎকারও দিয়েছিলেন। তিনি বলেছেন, আমি মনে করি- এবার তিনি (পুতিন) ওই ‘বিশেষ অভিযান’ থেকে সরে আসার চেষ্টা করবেন। কেননা তিনি নিজের অবস্থানের পরিবর্তন করছেন।এ দিকে ইউরোপীয় নিরাপত্তা ও সহযোগিতা সংস্থার মার্কিন রাষ্ট্রদূত মাইকে কার্পেন্টার মনে করেন, যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ‘অত্যন্ত বিশ্বাসযোগ্য’ গোয়েন্দা প্রতিবেদনে রয়েছে যে- রাশিয়া মে মাসের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে ডোনেস্ক এবং লুহানস্ককে যুক্ত করতে পারে। একই সঙ্গে ইউক্রেনের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় খেরসন শহরকে ‘গণপ্রজাতন্ত্র’ ঘোষণা ও সংযুক্তেরও পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারে মস্কো। মূলত সিএনএনের একাধিক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

পশ্চিমা কর্মকর্তা ও সিএনএনের এমন আভাসে ক্রেমলিনের কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। যদিও ডনবাস অঞ্চলের ডোনেস্ক, লুহানস্ক এবং খেরসনের অধিকাংশ বেশিরভাগ স্থানেই রুশ বাহিনী নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। এমনকি হারানো অঞ্চল পুনরুদ্ধারে এখনো তীব্র লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে ইউক্রেনীয় যোদ্ধারা।

সেখানকার বেসামরিক ও সামরিক স্থাপনা লক্ষ্য করে দূর পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে আক্রমণ চালিয়ে করে যাচ্ছে রাশিয়া। এতে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। মারিউপোলের পরিস্থিতিও প্রায় একই।জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের দফতরের (ওএইচসিএইচআর) তথ্য মতে, ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসন শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে তিন হাজারেরও অধিক বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। এমন অবস্থায় যুদ্ধ বন্ধে রুশ প্রেসিডেন্টকে বারংবার আহ্বান জানিয়ে আসছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!