Image Not Found!
ঢাকা   ১৪ এপ্রিল ২০২১ | ১ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সর্বশেষ সংবাদ

  টঙ্গীবাড়িতে প্রতারক চক্রের তিন সদস্য আটক। (2)        চাঁদ দেখা গেছে আগামীকাল বুধবার থেকে রোজা (2)        নকলায় হাজারধিক মাস্ক ও সাবান বিতরণ করলেন 'প্রস্ফুটিত শেরপুর' ফেইসবুক গ্রুপ (95)        জরুরী প্রয়োজনে যাতায়াতের নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ পুলিশের উদ্যোগে চালু হয়েছে মুভমেন্ট পাস (3)        খালেদা জিয়ার আরোগ্য কামনায় দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদল, ইতালী শাখা (4)        আজ বিকেল তিনটা পর্যন্ত টাকা জমা ও উত্তোলন করতে পারবেন (2)        ইতালিতে প্রবাসী নারীদের আয়োজনে নারী নেত্রী মেহেনাস তাব্বাসুম শেলির তত্বাবধায়নে রোমের বিভিন্ন স্হানে বৈশাখ উদযাপন (4)        এক সপ্তাহের সর্বাত্মক লকডাউনে যা বন্ধ থাকবে জেনে নিন (3)        রাজধানী ছাড়তে শুরু করেছে নিম্ন আয়ের মানুষ (2)        দেশে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড (2)      

সাপের সাথে অন্যরকম ভালোবাসা,শেরপুরে নূর ইসলামের |

জাহিদুল খান সৌরভঃমানুষের  সাথে অনেক প্রাণীর ভালোবাসা সৃষ্টি হয়। সেটা যদি হয় বিষধর গোখরা সাপের সাথে সেটা কিন্তু অবিশ্বাস্য এবং ভয়ানক। বিশ্বাস যোগ্য না হলেও এমনি এক অসাধারণ লোকের কথা জানাবো। শেরপুর সদর থেকে কামারের চর মাত্র কয়েক মিনিটের রাস্তা। সেখানেই থাকেন আধ্যাতিক শক্তি প্রাপ্ত মো. নূর ইসলাম (৪০)। তার দাবি সেই ছোট্র বেলা থেকেই তিনি স্বপ্নে সব সময় সাপ দেখতেন অনেক সময় ভয়ে ঘুমের মধ্যে চিৎকারও করতেন। তাই এ দু:স্বপ্ন থেকে বাঁচতে মা-বাবা তার গলায় বেধে দিয়েছিলেন নানা রকম তাবিজ-কবজ। কিন্তু কোন বাধায় সাপের কাছ থেকে তাকে আলাদা করতে পারে নি। নূর ইসলাম জানায়, সে এক সময় তার স্বপ্নে সাপ আসলে তিনি আর ভয় পেতেন না, বরং সাপ স্বপ্নে আসলে সাপের সাথে খেলা করতেন।


এমনকি তিনি যখন তৃতীয় শ্রেণিতে পড়তেন তখন বিষধর সাপও নাকি সবসময় তার পকেটেই থাকতো। একদিন এক মজার ঘটনাও শেয়ার করলেন, ক্লাশের কোন এক শিক্ষার্থীর কলম চুরি হলে শ্রেণি শিক্ষক প্রত্যেক ছাত্রের পকেটে তল্লাশী শুরু করলে, এক সময় নূর ইসলামের পকেট হাত দিয়ে বের করে বিষধর সবুজ রঙের সাপ আর শিক্ষকতো ভয়েই দৌড়। ঘটে আরোও এক আজব ঘটনা, ৭ বছর বয়সে সর্বপ্রথম তিনি প্রায় অর্ধমৃত এক রোগীর জীবন বাঁচিয়েছেন, যেখানে অনেক বর বর ওঝা- কবিরাজ ছিল ব্যর্থ। সাপে কাঁটা রোগীকে বিষমুক্ত করার নিয়মও নাকি আসতো নূর ইসলামের স্বপ্ন থেকেই ৷

এখন তিনি শেরপুর জেলার বিভিন্নস্থান থেকে প্রায় ৮-১০ টি গোখরা সাপ সংগ্রহ করেছেন, যা রয়েছে তারই বাড়ির বাইরে খরের গাদির নিচে, এগুলো নিয়ে খেলা, রোগীকে বিষমুক্ত করা তার আয়ের মূল উৎস। নূর ইসলাম জানান সাপ যত বিষধর হোক না কেন তাকে তো কোন সাপতো কাটেই না বরং তার সাথে খেলা করে। বর্তমানে তিনি শেরপুর ও জামালপুর সহ আশপাশের অনেক দূরদূরান্ত থেকে আসা সাপে কাঁটা রোগীদের অল্প খরচে চিকিৎসা দেন তিনি।

সর্বশেষ তার ভবিষ্যত পরিকল্পনা জানতে চাইলে নূর ইসলাম বলেন, আধ্যাতিক শক্তির অপব্যবহার করতে চাই না আমি বাংলাদেশ সরকার সহ সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগীতা চাই এবং তিনি জানেন যে সাপের বিষ অনেক মূল্যবান একটি সম্পদ যদি সরকারি ভাবে তাকে বৈধ লাইসেন্স দেওয়া হয় তাহলে তিনি দৈনিক চাহিদামত সাপের বিষও সরবারহ করতে পারবেন।

সবশেষে নূর ইসলামকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে জানায়, প্রত্যেকটি গোখড়ার দাঁত রয়েছে। কোনটির বিষদাঁত ভাঙ্গা না এবং স্বশরীরে একটি বড় খোখড়ার দাঁত থেকে কয়েক ফোঁটা বিষ বের করেও দেখায়।

Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!
Image Not Found!